শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ১০:৫৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
শিরোনামঃ
ঈশ্বরদীতে কৃষকের নায্যমূল্যে সার নিশ্চিত করতে মাঠে কৃষি কর্মকর্তা রাশিয়ায় অন্তর্ভুক্ত হলো ইউক্রেনের চার প্রদেশ আইজিপি হিসেবে দায়িত্ব নিলেন চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে দুই সাংবাদিকের উপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন চাটমোহরে বড়াল নদী রক্ষায় করনীয় শীর্ষক আলোচনা সভা পাবনায় বিআরটিএর সহকারী পরিচালক ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে দুদকের মামলা রূপপুর বিদ্যুৎকেন্দ্রের দ্বিতীয় ইউনিটে ব্রিজক্রেন স্থাপনের কাজ সম্পন্ন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে রূপপুর বিদ্যুৎ প্রকল্পের শ্রমিকের মৃত্যু ঈশ্বরদীতে আখের সঙ্গে সাথি ফসল চাষে ভাগ্য ফিরছে কৃষকের ঈশ্বরদীতে দুপুরে বাসা ভাড়া নিয়ে রাতেয় স্ত্রীকে হত্যা

পাবনা জেলা পরিষদ নির্বাচনে, চেয়ারম্যান পদে আ.লীগের দুই নেতার মনোনয়ন জমা

বার্তাকক্ষ
প্রকাশিতঃ শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ১০:৫৬ পূর্বাহ্ন
জেলা পরিষদ নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার ও পাবনা জেলা প্রশাসক বিশ্বাস রাসেল হোসেন।

জেলা পরিষদ নির্বাচনে পাবনায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের দুই নেতা মনোনয়ন পত্র দাখিল করেছেন। বৃহঃস্পতিবার জেলা পরিষদ নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার ও পাবনা জেলা প্রশাসক বিশ্বাস রাসেল হোসেন এবং জেলা সিনিয়র নির্বাচন অফিসারের কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেন।
জেলা নির্বাচন কার্যালয়ের তথ্যমতে, আসন্ন জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ২ জন, সাধারণ সদস্য পদে ৫৪ জন ও সংরক্ষিত নারী সদস্য ১১ জন পদে মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছেন। মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন বৃহস্পতিবার দুপুরে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থী জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক উপদেষ্টা, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা আ স ম আব্দুর রহিম পাকন, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেব মনোনয়ন জমা দিয়েছেন জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক প্রচার সম্পাদক কামিল হোসেন।

সদস্য ও নারী সদস্য পদে মনোনয়ন জমা দেয়া প্রার্থীরা অধিকাংশই আওয়ামীলীগের নেতা কর্মী। সদস্য পদে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক বিজয় ভূষণ রায়, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক হাজী ফারুক হোসেন, স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা নজরুল ইসলাম সোহেল।

মনোনয়নপত্র জমা শেষে শেখ হাসিনার প্রতি ধন্যবাদ জানিয়ে আওয়ামীলীগের প্রার্থী ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বলেন, দলীয় সিদ্ধান্তের প্রতি তারা অবিচল। তাদের আশা আওয়ামীলীগের প্রার্থীকেই ভোটাররা জয়ী করবেন। আর কেউ বিদ্রোহী প্রার্থী হলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিকভাবে ব্যবস্থা নেয়া হবে। আর বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী বলেন, বিগত নির্বাচনেও তিনি প্রার্থী হয়েছিলেন। কিন্তু তাকে হারানো হয়েছে। যাকে নির্বাচিত করা হয়েছিল তার মাধ্যমে উন্নয়ন ত্বরান্বিত হয়নি। তিনিও জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

চলতি বছরের আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর, মনোনয়নপত্র যাছাই বাছাই, ১৮ সেপ্টেম্বর বাতিলকৃত মনোনয়নপত্রের আপিল, ১৯ থেকে ২১ সেপ্টেম্বর, আপিল নিষ্পত্তি, ২২ থেকে ২৪ সেপ্টেম্বর প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ সময় ২৫ সেপ্টেম্বর। প্রতীক বরাদ্দ হবে ২৬ সেপ্টেম্বর। ১৭ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে ভোটগ্রহণ।

শেয়ার করুন...


এই বিভাগের আরো খবর........
.
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
error: কপি করার অনুমতি নেই !
error: কপি করার অনুমতি নেই !