রবিবার, ১৪ অগাস্ট ২০২২, ০৩:১৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
শিরোনামঃ
লালপুরে ভেল্লাবাড়ীয়া স্কুলের প্রধান শিক্ষকের অপসারণ ও কমিটি গঠনের দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল আধুনিকতার ছোঁয়ায় হারিয়ে যাচ্ছে ঈশ্বরদীতে গ্রামীন ঐতিহ্য মৃৎশিল্প ঈশ্বরদী বাজারে বেড়েছে চালের দাম, বিপাকে নিম্ন আয়ের মানুষ ঈশ্বরদীতে কৃষকের হা-হুতাশ: খরায় মরছে শিমগাছ তুরাগে রিকশার গ্যারেজে বিস্ফোরণে দগ্ধ ৮ জনই মারা গেলেন কুষ্টিয়া ভেড়ামারায় পেট্রোল পাম্পে বিস্ফোরণে দুজন নিহত বিদ্যুৎ সাশ্রয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে দুদিন ছুটির বিষয়ে ভাবছে সরকার ঈশ্বরদীতে ৩ কেজি গাঁজাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক লালপুরে এক কোটি টাকার মাদকসহ ৩ ব্যবসায়ী আটক সাঁথিয়ায় নকল প্রসাধনী প্রস্তুত ও বিক্রির দায়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতে কারাদণ্ড সহ জরিমানা আদায় 

নিজ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীকে প্রাইভেট পড়ানো যাবে না

বার্তাকক্ষ
প্রকাশিতঃ রবিবার, ১৪ অগাস্ট ২০২২, ০৩:১৮ পূর্বাহ্ন
প্রতিকি ছবি।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কোনো শিক্ষক তাঁর নিজ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীকে প্রাইভেট পড়াতে পারবেন না। এমন বাধ্যবাধকতা রেখে শিক্ষা আইনের খসড়া চূড়ান্ত করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। প্রস্তাবিত আইনের খসড়ায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নির্ধারিত সময়ের বাইরে শিক্ষকদের কোচিং-প্রাইভেটের সুযোগ রাখা হয়েছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের করা খসড়া অনুযায়ী, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের প্রাইভেট টিউশনের মাধ্যমে পাঠদানের জন্য কোচিং সেন্টার পরিচালনা করা বা কোচিং সেন্টারে শিক্ষকতা করা নিষিদ্ধ বলে গণ্য হবে না। তবে কোচিং সেন্টারে কোনো শিক্ষক তাঁর নিজ প্রতিষ্ঠানের কোনো শিক্ষার্থীকে পাঠদান করাতে পারবেন না। এমনকি কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কোনো শিক্ষক নিজ প্রতিষ্ঠানের কোনো শিক্ষার্থীকে প্রাইভেটও পড়াতে পারবেন না। কোচিং চালাতে গেলে নিবন্ধন নিতে হবে। তবে সরকার নির্ধারিত অর্থের বিনিময়ে ও অভিভাবকদের সম্মতিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শ্রেণি কার্যক্রমের বাইরের সময় অতিরিক্ত ক্লাসের ব্যবস্থা করা যাবে। অবশ্য এ বিষয়ে ইতোমধ্যে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্বাহী আদেশ রয়েছে।

২০১১ সাল থেকে শিক্ষা আইনের খসড়া নিয়ে আলোচনা চলছে। অভিযোগ আছে, নোট-গাইড বা সহায়ক বই এবং কোচিং-প্রাইভেটের মতো কিছু বিষয় রাখা না-রাখা নিয়েই আইনের খসড়াটি এত দীর্ঘ বছর ধরে ঘুরপাক খাচ্ছে। অবশেষে শিক্ষা আইনের খসড়া প্রণয়ন করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠাল শিক্ষা মন্ত্রণালয়। প্রস্তাবিত আইনের খসড়ায় নোট-গাইড বই মুদ্রণ, বাঁধাই, প্রকাশ বা বাজারজাত নিষিদ্ধ রাখা হয়েছে। কেউ এই বিধান লঙ্ঘন করলে জেল-জরিমানা ভোগ করতে হবে। ১৯৮০ সালে করা একটি আইনেও অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত নোট-গাইড নিষিদ্ধই আছে। এ জন্য এখন নোট-গাইডের পরিবর্তে অনুশীলন বই বা সহায়ক পাঠ্যবই চলছে। প্রস্তাবিত আইনেও সরকারের অনুমোদন নিয়ে সহায়ক বই বাঁধাই, প্রকাশ বা বাজারজাত করার সুযোগ রাখা হয়েছে। তবে  কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বা কোনো শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের সহায়ক বই কেনা বা পাঠে বাধ্য করতে পারবেন না। এসব বই কিনতে বা পাঠে বাধ্য বা উৎসাহ দিলে তা অসদাচরণ হিসেবে গণ্য হবে।

শেয়ার করুন...


এই বিভাগের আরো খবর........
.
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
error: কপি করার অনুমতি নেই !
error: কপি করার অনুমতি নেই !